চট্টগ্রাম বন্দরে ভারতের ট্রান্সশিপমেন্টের প্রথম পরীক্ষামূলক চালান

Bank Bima Shilpa    ০১:৩৮ পিএম, ২০২০-০৭-২১    17


চট্টগ্রাম বন্দরে ভারতের ট্রান্সশিপমেন্টের প্রথম পরীক্ষামূলক চালান

 

ভারতের কলকাতার শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় বন্দর থেকে ট্রানজিট পণ্যবাহী কনটেইনার নিয়ে কোস্টাল জাহাজএমভি সেজুঁতিচট্টগ্রাম বন্দরে পৌঁছেছে। আজ মঙ্গলবার সকালে জাহাজটি বন্দরের জেটিতে পৌঁছায়

ভারত বাংলাদেশের মধ্যে সম্পাদিত ট্রানজিট চুক্তির আওতায় এবং দুই দেশের মধ্যে সম্পাদিত এসওপি (পরিচালন পদ্ধতির মান) অনুযায়ী প্রথম ট্রায়াল রান (পরীক্ষামূলক চলাচল) এটি। এতে প্রতিটি কনটেইনারের বিপরীতে সরকারি রাজস্ব আদায় করবে চট্টগ্রাম কাস্টমস কর্তৃপক্ষ। আর বন্দর ব্যবহার করার প্রেক্ষিতে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ পোর্ট ডিউজ, পাইলটেজ ফি অন্যান্য আনুষঙ্গিক চার্জ বা ফি আদায় করবে চট্টগ্রাম বন্দরের জন্য নির্ধারিত ট্যারিফ সিডিউল অনুযায়ী

প্রক্রিয়াটি মূলত বাংলাদেশ হয়ে ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলকে যুক্ত করার একটি সংক্ষিপ্ত পথ সৃষ্টি করবে। এরই ধারাবাহিকতায় চট্টগ্রাম বন্দর ব্যবহার করে ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যে সড়কপথে কনটেইনারে পণ্য পরিবহনের ক্ষেত্রে কি ধরনের জটিলতা আসতে পারে তা এই ট্রায়াল রানের মাধ্যমে চিহ্নিত করা হবে

জানা গেছে, এই জাহাজে থাকা চারটি কনটেইনার চট্টগ্রাম বন্দরে খালাসের পর কাভার্ড ভ্যানে সড়কপথে আখাউড়া স্থলবন্দর হয়ে ভারতের ত্রিপুরা আসাম প্রদশে যাবে। এমভি সেঁজুতি নামের জাহাজটি মোট ২২১টি কনটেইনার রয়েছে। তার মধ্যে চারটি কনটেইনার পরীক্ষামূলকভাবে ট্রান্সশিপমেন্ট চুক্তির আওতায় আনা হয়েছে।  বাকি ১১৭টি কনটেইনার বাংলাদেশি ব্যবসায়ীদের

২০১৮ সালের অক্টোবরে বাংলাদেশ ভারতের মধ্যেঅ্যাগ্রিমেন্ট অন দি ইউজ অব চট্টগ্রাম অ্যান্ড মোংলা পোর্ট ফর মুভমেন্ট অব গুডস অ্যান্ড ফ্রম ইন্ডিয়াচুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। চুক্তি অনুযায়ী, বাংলাদেশের মোংলা চট্টগ্রাম সমুদ্র বন্দর ব্যবহার করে ভারত তার পূর্বাঞ্চলের রাজ্যগুলোয় মালামাল পরিবহন করার সুযোগ পাবে। এজন্য তারা বন্দর পরিবহন ব্যবহারের খরচ বহন করবে। 

কাস্টমস এর তথ্যমতে, ভারতীয় পণ্য ব্যবহারের জন্য বাংলাদেশ কাস্টমস সাত ধরনের মাশুল আদায় করবে। এই সাতটি হলো প্রতি চালানের প্রসেসিং ফি ৩০ টাকা, প্রতি টনের জন্য ট্রান্সশিপমেন্ট ফি ৩০ টাকা, নিরাপত্তা মাশুল ১০০ টাকা, এসকর্ট মাশুল ৫০ টাকা এবং অন্যান্য প্রশাসনিক মাশুল ১০০ টাকা। ছাড়া প্রতি কনটেইনার স্ক্যানিং ফি ২৫৪ টাকা এবং বিধি অনুযায়ী ইলেকট্রিক সিলের মাশুল প্রযোজ্য হবে। এই নির্ধারিত সাতটি মাশুল বাবদ বাংলাদেশ কনটেইনার প্রতি ৫৫ ডলার পর্যন্ত পাবে। এর সাথে আলাদাভাবে যুক্ত হবে চট্টগ্রাম বন্দরের মাশুল

চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের সচিব মো. ওমর ফারুক গতকাল প্রসঙ্গে বণিক বার্তাকে বলেন, ‘চট্টগ্রাম বন্দর সড়কপথ ব্যবহার করে ভারতীয় পণ্য তাদের উত্তর পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যে পরিবহনের প্রথম পরীক্ষামূলক কার্যক্রম এটি। চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ থেকে ট্রায়াল রান উপলক্ষে সকল প্রস্ততি নিয়ে রাখা হয়েছে বন্দরে এখন কোন জট না থাকায় পণ্য ওঠা-নামা কার্যক্রমও দ্রুত হয়ে যাবে চট্টগ্রাম বন্দরের নির্ধারিত ট্যারিফ সিডিউল অনুযায়ী বন্দরের চার্জসমূহ আদায় করা হবে। দুই দেশের মধ্যে সম্পাদিত চুক্তি অনুযায়ী এবং চট্টগ্রাম বন্দরের বিদ্যমান বার্থিং নীতিমালা (আগে আসলে আগে ভিড়ার অনুমতি) অনুযায়ী ট্রানজিট কার্গোবাহী জাহাজকে বার্থ করা হবে। ট্রানজিট চুক্তির আওতায় পণ্য পরিবহন পুরোদমে শুরু হলে দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে নতুন মাত্রা সূচিত হবে।

উল্লেখ্য, সাধারণত সেভেন সিস্টার নামে পরিচিত ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যগুলোতে কলকাতা থেকে সড়কপথে ট্রাকে পণ্য পৌঁছতে সময় লাগে এক সপ্তাহ বা তারও বেশি সময় নতুন এই রুটে দুই দিনের মধ্যে কলকাতা থেকে চট্টগ্রাম পৌঁছানোর পর সড়কপথে দ্রুত পৌঁছবে আগরতলা সীমান্ত দিয়ে ত্রিপুরা

এমভি সেজুঁতির শিপিং এজেন্ট ম্যাংগো লাইন লিমিটেড সূত্রে জানা গেছে, ‘ট্রান্সশিপমেন্টের চারটি কনটেইনারের মধ্যে দুটিতে রয়েছে টাটা স্টিল উৎপাদিত টিএমটি স্টিল বার এবং বাকি দুটিতে রয়েছে ইটিসি এগ্রো প্রসেসিং এর মসুর ডাল। চট্টগ্রাম বন্দরে পৌঁছানোর পর জাহাজ থেকে নামিয়ে সরাসরি বাংলাদেশের কনটেইনার পরিবহনকারী গাড়ি প্রাইম মুভার ট্রেলারে করে ভারতের আগরতলার উদ্দেশে রওনা হবে। আগরতলা থেকে খালাসের পর রডের চালান নেওয়া হবে পশ্চিম ত্রিপুরার জিরানিয়ায়। চালানটি ভারতের এস এম করপোরেশনের। অপরদিকে আগরতলায় ইন্টিগ্রেটেড চেক পোস্ট বা আইসিপিতে খালাস করে ডালের চালান ভারতীয় ট্রাকে করে আসামের করিমগঞ্জে জেইন ট্রেডার্সের কাছে নেওয়া হবে। 

এমভি সেঁজুতিজাহাজের এজেন্ট ম্যাঙ্গো লাইন শিপিংয়ের ব্যবস্থাপক হাবিবুর রহমান বণিক বার্তাকে বলেন, ‘বাংলাদেশের বন্দর ব্যবহার করে ত্রিপুরা আসাম যাবে পণ্যবাহী জাহাজটি। চট্টগ্রাম বন্দর থেকে সড়কপথে আখাউড়া-আগরতলা স্থলবন্দর হয়ে চালান দুটির শেষ গন্তব্য ভারতের ত্রিপুরা আসাম রাজ্যে। জাহাজটি ট্রান্সশিপমেন্টের চারটি কনটেইনার নিয়ে আসবে। চট্টগ্রাম বন্দরে কনটেইনারগুলো নামানোর পর চট্টগ্রাম কাস্টমস এর আনুষ্ঠানিকতা শেষে স্থলপথে আখাউড়া হয়ে আগরতলায় যাবে এবং সেখান থেকে ত্রিপুরায় যাবে। চারটি কনটেইনারের মধ্যে দুটি স্টিল কারখানার টিএমটি বার বোঝাই এবং দুটি কনটেইনার ডালবোঝাই।’ 

এর আগে গত জানুয়ারি মাসে ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে ট্রান্সশিপমেন্টের আওতায় পণ্যবাহী কনটেইনার পরিবহনের ট্রায়াল রান শুরু হওয়ার কথা থাকলেও করোনাভাইরাস অন্যান্য জটিলতায় তা তখন শুরু করা যায়নি

 


রিটেলেড নিউজ

আরএসআরএমের স্টিল মিল পরিদর্শনে সিআইইউর শিক্ষার্থীরা

আরএসআরএমের স্টিল মিল পরিদর্শনে সিআইইউর শিক্ষার্থীরা

Bank Bima Shilpa

  চট্টগ্রাম: কর্মমুখী শিক্ষা, যুগোপযুগী সিলেবাস আর দক্ষতা বৃদ্ধি। এই তিনে চলছে চিটাগং ইন্ডিপেন... বিস্তারিত

পরিবেশ দূষণে দুই কারখানা, ২৫ লাখ টাকা জরিমানা

পরিবেশ দূষণে দুই কারখানা, ২৫ লাখ টাকা জরিমানা

Bank Bima Shilpa

  চট্টগ্রাম: দুটি কারখানার একটিতেও তরল বর্জ্য শোধনাগার নেই, নেই পরিবেশ ছাড়পত্রও। এমনকি ল্যাব প্... বিস্তারিত

পেঁয়াজের দাম ২৫ থেকে ৭০ টাকা কীভাবে হয়?

পেঁয়াজের দাম ২৫ থেকে ৭০ টাকা কীভাবে হয়?

Bank Bima Shilpa

  চট্টগ্রাম: কেজি প্রতি পেঁয়াজের দাম হঠাৎ করে ২৫ থেকে ৭০ টাকা কীভাবে হলো- ব্যবসায়ীদের প্রতি সেই প... বিস্তারিত

সর্বশেষ

সূচক বেড়ে পুঁজিবাজারে লেনদেন চলছে

সূচক বেড়ে পুঁজিবাজারে লেনদেন চলছে

Bank Bima Shilpa

  ঈদ পরবর্তী সপ্তাহের তৃতীয় কার্যদিবস বুধবার (৫ আগস্ট) দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচে... বিস্তারিত

ব্র্যাক ব্যাংকের দ্বিতীয় প্রান্তিক প্রকাশ

ব্র্যাক ব্যাংকের দ্বিতীয় প্রান্তিক প্রকাশ

Bank Bima Shilpa

  পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানি ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেড চলতি হিসাববছরের দ্বিতীয় প্রান্তিক... বিস্তারিত

আমদানি বাণিজ্যে হঠাৎ সুখবর

আমদানি বাণিজ্যে হঠাৎ সুখবর

Bank Bima Shilpa

   করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব শুরুর অনেক আগ থেকেই প্রবাসী আয় ছাড়া অর্থনীতির সব সূচক খারাপ অবস... বিস্তারিত

সরকার হাটে আল-আরাফাহ্ ব্যাংকের উপ-শাখা উদ্বোধন 

সরকার হাটে আল-আরাফাহ্ ব্যাংকের উপ-শাখা উদ্বোধন 

Bank Bima Shilpa

  শরীয়াহ্ ভিত্তিক ব্যাংকিং সেবাকে মানুষের মাঝে ছড়িয়ে দিতে চট্টগ্রামের সরকার হাটে উপ-শাখা উদ্বো... বিস্তারিত